১০ মিনিটে গাড়ির সামনের গ্লাসের ফাটল মেরামতের সহজ উপায়!

দুর্ভাগ্যবশত কখনো কখনো আঘাতে বা দুর্ঘটনার কারণে গাড়ির সামনের গ্লাস ফেটে যেতে পারে অথবা চির দেখা দিতে পারে। সেক্ষেত্রে নতুন গ্লাস কিনে লাগানো বেশ ব্যয়বহুল ব্যাপার। আবার গাড়ির সামনের গ্লাসে ফাটল থাকলে, তাতে ড্রাইভারের গাড়ি চালাতেও সমস্যা হয়। তাই নিজেই যদি গাড়ির গ্লাসের ফাটল রিপেয়ার করতে পারেন, সেটা অর্থনৈতিক দিক দিয়ে সাশ্রয়ী হবে। চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক, নিজেই কীভাবে নিজের গাড়ির গ্লাসের ফাটল/চির ঠিক করবেন।

যা যা লাগবে:

  • ব্লেড
  • গ্লাস ক্লিনার
  • পেপার টাওয়েল (ফিনিশিং ফিল্ম)
  • টেপ
  • সাকশন কাপ টুল

সতর্কতা:

সূর্যের আলোর মধ্যে গাড়ির গ্লাস ঠিক করার কাজটি করা থেকে বিরত থাকুন। নতুবা গ্লাস রেজিন প্রয়োগ করার সাথে সাথেই তা শক্ত হয়ে যাবে। খুব গরমের মাঝেও এই কাজটি করতে যাবেন না। ছায়াযুক্ত এবং অপেক্ষাকৃত কম তাপমাত্রায় গাড়ির গ্লাসের ফাটল ঠিক করার জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

১ ক্ষতিগ্রস্ত জায়গাটি পরিষ্কার করুন

প্রথমেই গ্লাসের ক্ষতিগ্রস্ত জায়গাটি পরিষ্কার করে নেয়া বাধ্যতামূলক কাজ। কারণ অপরিষ্কার ফাটল মেরামত করলে সেটা সুন্দর এবং সঠিক হবে না। ভাঙ্গা বা চির ধরা অংশে কোন ক্ষুদ্র কাঁচের কনা থাকলে রেজার ব্লেড দিয়ে সেগুলো পরিষ্কার করে নিন। এসব ক্ষুদ্র কাঁচের কনা থাকলে গ্লাস রেজিন ঠিক মতো কাজ করে না। পরিষ্কার করা এবং গ্লাসের ধ্বংসাবশেষ ছেঁচে তোলা হয়ে গেলে জায়গাটি শুকানোর জন্য পর্যাপ্ত সময় দিন।

গাড়ির গ্লাস পরিষ্কার করে নিন

২. সাকশন কাপ স্থাপন করুন

ক্ষতিগ্রস্ত জায়গাটি শুকিয়ে গেলে একটি সাকশন কাপ টুল নিন। টুলটি গ্লাসের ক্ষতিগ্রস্ত জায়গার উপর এমন ভাবে বসান যেন, সাকশন টুলের থ্রেডটি ঠিক ভাঙ্গা যায়গা বরাবর থাকে। অর্থাৎ ভাঙ্গা জায়গার ঠিক মধ্যবর্তী অংশে যেন থ্রেডটি বসে। সতর্কতার সাথে সাকশন টুলের চার পায়ের উপর চাপ দিয়ে টুলটি গ্লাসের উপর বসিয়ে আটকে দিন।

সাকশন কাপ টুল ফাটলের উপর বসান

৩. থ্রেড রিপেয়ার টিউব যুক্ত করুন

সাকশন কাপ টুল ভাঙ্গা অংশের উপর বসানো হয়ে গেলে, সাকশন কাপের মধ্যের অংশে থ্রেড রিপেয়ার টিউব প্রবেশ করান। থ্রেড রিপেয়ার টিউব প্রবেশ করানোর জন্য, এটিকে স্ক্রুর মতো ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে প্রবেশ করাতে হবে। হাত দিয়েই এই কাজটি করুন, কোন যন্ত্রের সাহায্য নেয়ার প্রয়োজন নেই।

সাকশন থ্রেড টিউব প্রবেশ করান।

৪. টিউবটি জায়গামত বসেছে কিনা দেখে নিন।

সাকশন কাপ টুল এবং এর মধ্যে রিপেয়ার টিউব বসানো হয়ে গেলে দেখে নিন যে টুল এবং টিউব ঠিক জায়গামত বসেছে কিনা। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ। কারণ, ফাটল মেরামত কত ভাল হবে তা নির্ভর করে সাকশন কাপ কত ভালভাবে জায়গামত বসেছে তার উপরে। জায়গামত বসেছে কিনা তা পরীক্ষা করার জন্য গাড়ির ভেতর থেকে সাকশন টুলের নিচের দিকটা লক্ষ করুন। থ্রেড টিউব যদি ফাটল বা গর্তের ঠিক মাঝ বরাবর বসে থাকে তাহলে বুঝবেন সাকশন টুল স্থাপন করা সঠিক হয়েছে।

সাকশন কাপ এবং টিউব ঠিক ফাটলের উপর বসেছে কিনা দেখে নিন।

৫. রেজিন ঢালুন

সাকশন টিউব ঠিক জায়গামত বসানো হয়ে গেলে, রেজিনের বোতলের ক্যাপ খুলে এর লম্বা মাথাটি সাকশন থ্রেট টিউবের মধ্যে ঢুকিয়ে দিন। এরপর রেজিনের ছোট্ট বোতলটি ধীরে ধীরে চাপ দিন। গ্লাসের ফাটল বা ছোট গর্ত মেরামত করার জন্য খুব বেশি রেজিনের দরকার পড়ে না। দুই ফোটা রেজিনই যথেষ্ট। সুরক্ষার জন্য ৪ ফোটাও ব্যবাহার করতে পারেন। তবে এর বেশি না।

সাকশন থ্রেডে রেজিন ঢালুন।

৬. প্লাঞ্জার যুক্ত করুন

রেজিন ঢালার সাথে সাথে সাকশন থ্রেড টিউবের মধ্যে দিয়ে সাকশন কাপের প্লাঞ্জার দণ্ডটা ঢুকিয়ে টাইট দিন। প্লাঞ্জারটি টাইট দেয়ার ফলে, থ্রেডের মধ্যে দিয়ে ঢালা রেজিন সঠিক ভাবে গ্লাসের গায়ে লেগে যাবে। চাপাচাপি না করে প্লাঞ্জারের স্ক্রু ঘুরতে ঘুরতে থেমে যাওয়ার আগ পর্যন্ত টাইট দিন। টাইট দেয়া হয়ে গেলে প্লাঞ্জারটি পুনরায় খুলে ফেলুন। এতে করে বাবল বা বাতাস ঢুকে থাকলে রেজিন থেকে সেগুলো বের হয়ে যাবে। তারপর আবারো প্লাঞ্জারটি টাইট দিন।

থ্রেড টিউবের ভেতর সাকশন টুলের প্লাঞ্জার ঢুকিয়ে টাইট দিন।

৭. ফিনিশিং ফিল্ম যুক্ত করুন

রেজিন প্রয়োগ করার কয়েক মিনিট পর সাকশন কাপ টুলটি খুলে ফেলুন। সাথে সাথে একটি ফিনিশিং ফিল্ম(পেপার টাওয়েল) মেরামত করা জায়গার উপর জুড়ে দিন। এরপর একটি রেজার ব্লেড দিয়ে ফিল্মের উপর দিয়ে সতর্কতার সাথে রেজিন দেয়া জায়গাটি গ্লাসের সাথে মিশিয়ে দিন। ফিল্মটি টেপ দিয়ে আটকে নিতে পারেন। এতে করে ফিল্মটি যথাস্থানে আটকে থাকবে এবং নড়ে যাবে না।

নিনিধিং ফিল্ম দিয়ে ঢেকে দিন দিন।

৮. মেরামত সম্পন্ন করুন

ফিনিশং ফিল্মটি সহ ক্ষতিগ্রস্ত জায়গাটি সম্পূর্ণ শুকাতে দিন। সম্পূর্ণ শুকানোর জন্য ১০ মিনিটই যথেষ্ট। এরপরেও যদি ফিল্মটি সরানোর পর দেখেন, রেজিন পুরোপুরি শুকায়নি, তাহলে চিন্তিত হবার কিছু নাই। আরো এক ড্রপ রেজিন যুক্ত করে ফিল্মটি আবার লাগিয়ে দিন। এবং সম্পূর্ণ শুকিয়ে যাওয়ার আগ পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। আবার যদি রেজিনের পরিমাণ বেশি হয়ে যায় তাহলে ব্লেডের ধারালো অংশ দিয়ে ঘষে রেজিনের সাথে গ্লাস মিলিয়ে দিন। যতক্ষণ না সম্পূর্ণভাবে চির মেরামত হচ্ছে ততক্ষণ বার বার রেজিন দিয়ে পুরো প্রক্রিয়াটি চালিয়ে যান।

মেরামত সম্পন্ন হয়ে গেলে গাড়িটি ড্রাইভিং এর জন্য প্রস্তুত।

গাড়ির সুরক্ষায় প্রহরী সম্পর্কে জানতে

 

এই লেখা নিয়ে আপনার অনুভূতি কী?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

মন্তব্যসমূহ


footer-svg