গাড়ির ইঞ্জিন ওভার হিটিং এর কারণ ও তাৎক্ষণিক প্রতিকার

চলার সময় ইঞ্জিন একটু গরম হওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু সবসময় যদি গাড়ির ইঞ্জিন গরম হয়ে যায় ও তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চাইতে বেড়ে যায়, তাহলে চিন্তার বিষয়। ইঞ্জিন ঠাণ্ডা রাখতে রেডিয়েটরে কুল্যান্ট ব্যবহার করা হয়। কুল্যান্ট এক ধরনের তরল। কুল্যান্ট ইঞ্জিনে প্রবাহিত হয় আর অতিরিক্ত তাপমাত্রা শোষণ করে নেয় । পুনরায় ইঞ্জিনে একই ভাবে কুল্যান্ট ইঞ্জিনে প্রবাহ হয় আর যেখানে প্রবাহ হয় সেখানে ঠাণ্ডা হয়ে যায়। গাড়ি সাধারণভাবে চলার সময় একটু আধটু গরম হতেই পারে কিন্তু যদি সবসময় ইঞ্জিন গরম হয়ে যায় তাহলে অবশ্যই একজন অভিজ্ঞের পরামর্শ নিন । আমরা হয়তো অনেকে কুল্যান্ট সিস্টেম নিয়ে বেশী কিছু জানি না। আসুন তাহলে  জেনে নেই এই জরুরী বিষয়গুলো-

কুল্যান্ট  সিস্টেম কীভাবে কাজ করে

কুল্যান্ট সিস্টেম গাড়ির খুবই সাধারণ একটি পদ্ধতি। গাড়ির রেডিয়েটর আর তরল দ্রব্য রাখার স্থানে কুল্যান্ট থাকে। আর ঐ অংশেই উপরে আর নিচে কিছু পাইপ থাকে যেগুলোর মাধ্যমে কুল্যান্ট ইঞ্জিনে প্রবাহিত হয় আবার রেডিয়েটর ফিরে আসে। আর এভাবেই রেডিয়েটর ঠাণ্ডা রাখা হয়। আপনার  গাড়িতে একটি থার্মোস্টেট  থাকে। যার মাধ্যমে  কুল্যান্ট একটি নির্দিষ্ট স্থানে আটকে রাখে যতক্ষন গাড়িটি সাধারণ তাপমাত্রায় না পৌছায় । রেডিয়েটরে গরম বাতাস বের করে দেয়ার জন্য থাকে ফ্যান । সেই ফ্যান গরম বাতাস বের করে দিতে সাহায্য করে। এবং টাইমিং বেল্ট কভারের পেছনে একটি পানির পাম্পার থাকে। সেই পাম্পার কুল্যান্টকে পাম্প করে পুরো ইঞ্জিনে ছড়িয়ে দেয়।

অ্যান্টি ফ্রিজিং কুল্যান্ট এমন হয় দেখতে

কুল্যান্ট ইঞ্জিনের আশেপাশে চক্রাকারে ঘোরে আর তাপ জমা করে আর এই পদ্ধতির মাধ্যমে ইঞ্জিন চালনার সময় যে তাপ উৎপন্ন হয় তা কমায়।   কিন্তু  কুল্যান্টের ভেতরের তাপ বৃদ্ধি করে । কুল্যান্ট পদ্ধতিটি রিসারকুলেট করে আর রেডিয়েটরের পাখার উপর দিয়ে যায় আর তাপ বের করে দেয়। কুল্যান্ট এই পদ্ধতি দিয়েই আবার নতুন করে কাজ শুরু করে।

গাড়ির ইঞ্জিন গরম হওয়ার সমূহ কারণ

বিভিন্ন কারনে গাড়ির ইঞ্জিন গরম হয়ে যেতে পারে। গাড়ির ইঞ্জিন গরম হওয়ার কারণগুলো একটু লক্ষ্য করলেই আপনি বুঝতে পারবেন

  • পরিমাণে কম কুল্যান্ট

গাড়ির অতিরিক্ত গরম হওয়ার ক্ষেত্রে অন্যতম প্রধান একটি কারণ হচ্ছে ইঞ্জিনে কুল্যান্টের পরিমান কমে যাওয়া। ইঞ্জিনে কুল্যান্টের পরিমান কমে গেলে ইঞ্জিনের তাপমাত্রা ঠিকভাবে নিয়ন্ত্রিত হতে পারেনা। অনেক সময় কুল্যান্ট লিকেজের কারনে পড়ে যেতে পারে।

  • নষ্ট থার্মোষ্ট্যাট

গাড়ি অতিরিক্ত গরম হওয়ায় আরেকটি কারণ হচ্ছে নষ্ট থার্মোষ্ট্যাট । থার্মোষ্ট্যাট সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রিত হয় ইঞ্জিনের তাপমাত্রার মাধ্যমে আর তখন কুল্যান্ট ইঞ্জিনের ভেতর দিয়ে সহজে যেতে পারে, কোন বাধাগ্রস্ত হয়না। আর যদি থার্মোষ্ট্যাট খুব বেশী কাছাকাছি লেগে থাকে তখনই বাঁধে বিপত্তি আর ইঞ্জিন হয়ে ওঠে গরম। আপনার গাড়ির হিটারও তখন ঠাণ্ডা বাতাস সরিয়ে দেয় ।

থার্মোষ্ট্যাট যদি নষ্ট হয় পাল্টে ফেলতে হবে
  • নষ্ট পানির পাম্প

খুব কম ঘটে কিন্তু পানির পাম্প মাঝে মাঝে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। গাড়ির ইঞ্জিন হঠাৎ করে গরম হওয়ার পেছনে আরেকটি কারণ হচ্ছে পানির পাম্প নষ্ট হওয়া । পানির পাম্প নষ্ট হয়ে গেলে সাধারণত টাইমিং বেল্টের সাথে এগুলো প্রতিস্থাপন হয়ে যায়। আর পানি পাম্প করার পার্টসটি নষ্ট থাকলে দ্রুত গাড়ির ইঞ্জিন গরম হয়ে উঠতে পারে।

নষ্ট পানির পাম্প প্রতিস্থাপন করে নেবেন
  • রেডিয়েটর মোটরের পাখা যদি নষ্ট থাকে

আবহাওয়া যদি বেশী গরম থাকে তাহলে রেডিয়েটর মোটরের পাখা যদি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। আর যখন রেডিয়েটর মোটরের পাখা যদি নষ্ট থাকে তখন আপনার গাড়ির ইঞ্জিন খুব দ্রুত অতিরিক্ত গরম হয়ে উঠতে পারে।

রেডিয়েটরে পাখা নষ্ট হলে দ্রুত ঠিক করে নেবেন
  • রেডিয়েটরে যদি পাখার রিলে যদি নষ্ট থাকে

রেডিয়েটরে যদি পাখার রিলে যদি নষ্ট থাকে তাহলে মুহূর্তেই গাড়ির ইঞ্জিন গরম হয়ে পড়তে পারে। বড় সড়ক গুলোতে চালানোর সময় এই সমস্যাটি বেশী দেখা দেয় না। কারণ সড়কপথে গাড়ি চালানোর সময় সাধারণভাবেই বাতাস এসে পাখায় লাগে আর রেডিয়েটরে পাখার প্রয়োজন পড়ে না। তবে অন্যান্য সময়ে এই পাখার রিলে নষ্ট হয়ে গেলেই অতিরিক্ত গরম হতে পারে আপনার গাড়ির ইঞ্জিন।

 

তাৎক্ষণিক ভাবে কীভাবে সারবেন এই সমস্যা / প্রতিকার

  • এসির সুইচ অফ করে দিন ।
  • ৩০-৬০ মিনিট গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ করে রাখুন।
  • কোন লিক বা অন্য কোন সমস্যা থাকলে খুঁজে বের করুন।
  • কুল্যান্ট রাখার জায়গাটি মাঝে মাঝে পরীক্ষা করে নেবেন ।
  • বড় সমস্যা দেখে ঠিক করে নেবেন।
  • ভালো সার্ভিস সেন্টার আর অভিজ্ঞ মেকানিকের পরামর্শ নিন ।
  • আপনার থার্মোস্টেট পুরানো হয়ে গেলে পাল্টে নিন।
  • প্রত্যেক মাসে কুল্যান্টের পরিমান চেক করে নেবেন ।
  • যত দ্রুত সম্ভব সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করুন।

আপনার গাড়ি ভালো রাখা সম্পর্কে চমকপ্রদ সব তথ্য পেতে চোখ রাখুন প্রহরীর ওয়েবসাইট এবং ফেসবুক পেইজে। প্রহরীর বাংলা গল্প বিভাগে পড়ুন গাড়ি নিয়ে যত ভাবনা। জেনে নিন নানা ধরনের টিপস এন্ড ট্রিকস, গাড়ির বিশ্ব, বিস্ময়কর সব গল্প আরো অনেক কিছু। আপনার গাড়িতে প্রহরী ভেহিক্যাল ট্র্যাকিং ডিভাইস ইন্সটল করুন। নিশ্চিন্তে থাকুন সারা বছর।

গাড়ির সুরক্ষায় প্রহরী সম্পর্কে জানতে

 

 

 

 

 

এই লেখা নিয়ে আপনার অনুভূতি কী?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

মন্তব্যসমূহ


footer-svg